অবশেষে ১২ঘন্টার চেষ্টায় পাগলা মহিষকে বধ

0
559
১২ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে পাগলা মহিষটাকে জবাই করেছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক :
বোয়ালখালী উপজেলায় ১২ ঘণ্টার চেষ্টায় একটি পাগলা মহিষ বধ করতে সক্ষম হয়েছে। এর আগে পাগলা মহিষের তান্ডবে একজন নিহত ও অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন।

শনিবার (১৭ জুলাই) বিকেল ৩টার দিকে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সেতু ভূষণ দাশের নেতৃত্বে মহিষটিকে নিয়ন্ত্রণে আনে। এরপর মহিষটিকে জবাই করে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার বিকেলে বোয়ালখালী উপজেলার শ্রীপুর নুরুল্লা মুন্সির হাটে তান্ডব চালিয়ে শ্রীপুর এলাকার মোঃ মোরশেদের ছেলে কাইমুল ইসলাম ইহাম (১৫) নিহত হয়।
তবে খরন্দ্বীপ ৯নং ওয়ার্ড শফি মেম্বারের বাড়ির মোঃ মান্ননের ছেলে মোঃ আরমানের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন আহতের স্বজন মোঃ মনছুর।

খবর পেয়ে স্থানীয় জনতার সহায়তায় পুলিশ, প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ অফিসার ডাঃ মহিউদ্দিন আকরাম, চন্দনাইশের প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ অফিসার ডাঃ ফয়সাল, উপসহকারী প্রাণিসম্পদ অফিসার এস এম সাইদুল আলম সাঈদ, অনিমেষ চৌঃ, মুজিবুর রহমান সহ মহিষটিকে নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা শুরু করে। পাগলা মহিষটি পূর্ব চরনদ্বীপ ছাদ দেওয়ালের পশ্চিম পাশে বিলে জবাই করে দেওয়া হয়েছে।

আরো দেখুন : বোয়ালখালীতে কোরবানির হাটে মহিষের আক্রমণে এক শিশুর মৃত্যু

মহিষটিকে জবাই করে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্তকর্তা ডঃ সেতু ভূষণ দাশ বলেন, পাগলা মহিষের তান্ডবে খবর পেয়ে আমরা ট্রাঙ্কুইলাইজার গানসহ (চেতনা নাশক) ৩ সদস্য বিশিষ্ট ট্রেনিং প্রাপ্ত মেডিক্যাল টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে রাতভরে চেষ্টা করি তবে দুপুরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় পাগলা মহিষটিতে জবাই করে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার জানান, মহিষটিকে নিয়ন্ত্রণে আনার পর জবাই করে দেওয়া হয়েছে। মহিষের হামলায় নিহত পরিবারকে আর্থিক সহায়তার জন্য এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here